মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৩:১৯ পূর্বাহ্ন

এইচএসসি’২১ ব্যাচের ক্ষতিপূরণ দাবি

  • প্রকাশের সময়ঃ মঙ্গলবার, ১০ নভেম্বর, ২০২০
  • ১৯ জন পড়েছেন
শেয়ার করুনঃ

কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে শিক্ষা কার্যক্রম বিঘ্নিত হয়েছে বিশ্বজুড়ে। পরিস্থিতির আলোকে বাংলাদেশকেও করোনার সঙ্গে খাপ খাওয়াতে সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে। চলতি বছরের মার্চ থেকে ক্লাস-পরীক্ষা নেয়া সম্ভব হয়নি। ফলে এ বছরের উচ্চ মাধ্যমিকে অটো প্রমোশনের সিদ্ধান্ত হয়েছে। পূর্ববর্তী পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে এইচএসসি-২০২০ ব্যাচের ফলাফল নির্ধারণ হবে।

গত মাসের প্রথম সপ্তাহে এইচএসসি-২০২০ ব্যাচ নিয়ে সরকার এ সিদ্ধান্ত জানায়। একই সঙ্গে জানানো হয় যে, পরবর্তী এইচএসসি পরীক্ষা (২০২১ সালের) যথা সময়ে অনুষ্ঠিত হবে। এ ঘোষণার পর থেকে ২০২১ সালের প্রায় ১৩ লাখ পরীক্ষার্থী এক ধরনের বিপাকে পড়েছেন।

তাদের দাবি, ২০২০ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ক্লাস, টেস্ট ও অন্যান্য প্রস্তুতি সম্পন্ন ছিল। কিন্তু করোনার কারণে পরীক্ষা নেয়া সম্ভব হয়নি। অন্যদিকে ২০২১ সালের পরীক্ষার্থীদের ক্লাসও অনুষ্ঠিত হয়নি। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানও বন্ধ রয়েছে। ফলে তাদের শিক্ষাকার্যক্রম ইতিমধ্যেই পিছিয়ে পড়েছে। এমন অবস্থায় যথাসময়ে পরীক্ষার ঘোষণায় বিপাকে পড়েছেন তারা।

এজন্য বিগত দিনে ক্লাস-পরীক্ষা না হওয়া এবং চলমান শিক্ষাকার্যক্রম বন্ধ থাকায় তাদের যে ক্ষতি হচ্ছে সেই ক্ষতি পুশিয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়ার দাবি করছেন শিক্ষার্থীরা। মানসিক চাপ থেকে মুক্ত হতে বিষয়টি নিয়ে দ্রুত সিদ্ধান্তও চান তারা।

নিজেদের দাবি আদায়ে ইতিমধ্যে সামাজিকমাধ্যম ফেসবুকে ঐক্যবদ্ধ হয়েছেন এইচএসসি’২১ ব্যাচের শিক্ষার্থীরা। ফেসবুকে একাধিক গ্রুপ খুলে সেখানে দাবি তুলছেন তারা। ‘এইচএসসি’২১ ব্যাচের ক্ষতিপূরণ চাই’ ও ‘এইচএসসি২০২১ ব্যাচের ক্ষতিপূরণ চাই’ নামে দুই গ্রুপে দুই লাখেরও বেশি শিক্ষার্থী একত্রিত হয়েছেন।

‘সময় নিউজ’এর পক্ষ থেকে এইচএসসি’২১ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে যোগাযোগ করলে জানান, করোনার মধ্যে তারা ক্লাস-পরীক্ষার ঝুঁকি নিতে চান না। এজন্য করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ৬ থেকে ৭ মাস সময় দিয়ে ক্লাস-সিলেবাস শেষ করে পরীক্ষা নেয়ার দাবি তাদের। সেটা সম্ভব না হলে অটোপাস ঘোষণা করতে হবে। শুধুমাত্র শহরকেন্দ্রীক পরিস্থিতি বিবেচনায় সিদ্ধান্ত না নেয়ারও দাবি তাদের।

এ বিষয়ে বানেশ্বর সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী কায়সার সামি সময় নিউজকে বলেন, ‘আমরা এক মাসও ঠিকমতো ক্লাশ করতে পারিনি। তাহলে কিভাবে পরীক্ষা দেব? আমাদেরকে ফুল টাইম (ক্লাস-সিলেবাস শেষ করার মতো সময়) না দিলে পরীক্ষা দেব না। আর সেটা সম্ভব না হলে অটোপাস চাই।’

দিনাজপুরের হলি ল্যান্ড কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী মো. আতাউল্লাহ সময় নিউজকে বলেন, ‘আমাদের সিলেবাস কমিয়ে যথাসময়ে পরীক্ষা নেওয়া হোক। পরীক্ষা যদি এমসিকিউ আকারে নেয়া হয় তাহলে অনেক ভালো।’

সিরাজগঞ্জের বেলকুচি সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী এম.ফেরদৌস সরকার সময় নিউজকে বলেন, ‘তাদের সম্পূর্ণ প্রস্তুতির জন্য অন্তত ৬ থেকে ৭ মাস সময় দরকার। অটোপাস না দিলেও এই সময় দিতে হবে।’

এইচএসসি-২০২১ ব্যাচের পরীক্ষা যথা সময়ে অনুষ্ঠিত হবে সরকারের এমন ঘোষণা থাকলেও শিক্ষার্থীদের প্রস্তুতির বিষয় ভাবা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন। তিনি বলেন, সামগ্রীক পরিস্থিতি বিবেচনা করেই সরকার সিদ্ধান্ত নেবে।

তিনি সময় নিউজকে বলেন, কোভিড পরিস্থিতির কারণে এইচএসসি-২০২০ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের অটোপাসের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে ২০২১ এর ব্যাচের পরীক্ষা যথা সময়েই নেওয়ার সিদ্ধান্ত আছে। যেহেতু শিক্ষার্থীদের ক্লাস, প্রস্তুতির বিষয় রয়েছে, সেজন্য এব্যাপারে আমরা কাজ করছি, অবশ্যই ভালো সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

অন্যদিকে করোনার মধ্যে এইচএসসি-২০২১ ব্যাচের পরীক্ষার বিষয়ে সময় নিউজে সম্প্রতি একটি অনলাইন মতামত জরিপ হয়। সেখানে ৬১ হাজার ভোট পড়ে। শিক্ষার্থীদের দাবির মধ্য থেকে মতামতে তিনটি বিষয় উল্লেখ করা হয়।

এর মধ্যে পরীক্ষা পেছানোর পক্ষে মতামত দেন ১৫ দশমিক ৪২ শতাংশ (৯,৪২৮ জন), সিলেবাস কমানোর পক্ষে মতামত দেন ৪ দশমিক ৩৭ শতাংশ (২,৬৬৯ জন) ও অটোপাসের পক্ষে মতামত দেন ৮০ দশমিক ১৮ শতাংশ (৪৯,০১২ জন)।

মন্তব্য দিন ...

শেয়ার করুনঃ
মিস করলে পড়ে নিন ...