1. abontu.ru95@gmail.com : abontu :
  2. adanbobadilla@bcd.geomenon.com : adanc1962547 :
  3. aktar.asia@gmail.com : aktar :
  4. jaidmtarik@gmail.com : campus22 :
  5. emteeaz2017@gmail.com : emteeaz :
  6. ahamedfarhad0123@gmail.com : farhad :
  7. admin@ctgcampus.com : jaid :
  8. mdmasum4882@gmail.com : masum :
  9. rafiebc0@gmail.com : rafi21 :
  10. rashedulislam.nubd@gmail.com : rashed21 :
  11. mdsadikaziz64@gmail.com : sadikaziz :
শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:১৫ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিংঃ
বেসরকারি ছাত্র-ছাত্রীর শিক্ষাজীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলা বন্ধ করুন। রাত পোহালেই বদরখালী সমিতির নির্বাচন, ভোটের মাঠে উড়ছে টাকা এসএসসির প্রশ্নফাঁস নিয়ে মামলায় যা বলা হয়েছে পছন্দের সাবজেক্টে চান্স পেলেন ৫৫ বছর বয়সী বেলায়েত ১১ সেপ্টেম্বর আইআইউসির ৫ম সমাবর্তন অনুষ্ঠান স্পিড ব্রেকার ও ফুটওভার ব্রিজের দাবিতে ইউএসটিসি শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন খুলশীতে বাইক দূর্ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী  সহ ২জন গুরুতর আহত  এসএসসি পরীক্ষার সময় পেছালো এক ঘন্টা, শুরু হবে বেলা ১১টায় এশিয়া কাপঃ ভারতকে হারিয়ে পাকিস্তান নিল প্রতিশোধ চট্টগ্রামে মাইক্রোবাসের ধাক্কায় চবি শিক্ষকের মৃত্যু

Anti Defamation League- কী এবং এদের উদ্দেশ্য কি ছিলো?

  • সময় সোমবার, ৫ জুলাই, ২০২১

মুসলিম ঘরে জন্মগ্রহণ করেও মুসলিম শাসকদের ইতিহাস জানে না এমনও হাজারো তরুণ আমাদের দেশে রয়েছে। যারা নিজেদের সংস্কৃতি সম্পর্কে জানার চাইতেও বিধর্মীদের সংস্কৃতি সম্পর্কে জানতে বেশি আগ্রহী। কিন্তু এর পিছনে কারণ কি? এর পিছনে রয়েছে দীর্ঘ ইতিহাস ও জায়োনিস্টদের ষড়যন্ত্র,সে জায়োনিস্ট সম্পর্কে বিস্তারিত অন্য একদিন আলোচনা করবো।

আজ আলোচনা করবো সে জায়োনিস্টদের অন্যতম শাখা Anti Defamation League এর ইতিহাস নিয়ে।

১৯১৩ সালে Anti Defamation League প্রতিষ্ঠিত হয়। আন্তর্জাতিক এ সংগঠনটির সদর দপ্তর নিউইয়র্কে অবস্থিত। একে কেন্দ্র করে গড়ে উঠে ৩২টি শাখা অফিস। ইহুদিদের প্রতি সাধারণ মানুষের যত ক্ষোভ,তা মোকাবেলা করাই এই সংগঠনটির মূখ্য উদ্দেশ্য।

একে ইহুদিদের প্রতিরক্ষা বাহিনী বললেও ভুল হবে না।
Anti Defamation League ইউরোপ আমেরিকার সেসব দেশকে টার্গেট করে যেখানকার প্রশাসনিক পদগুলোতে যথেষ্ট ইহুদি রয়েছে।শিক্ষা,ধর্ম ও সাংস্কৃতিক বিভাগগুলিতে তারা পর্যায়ক্রমে আঘাত হানতে শুরু করে।ধর্মীয় শিক্ষা উঠিয়ে দিয়ে তারা প্রতিষ্ঠা করে সেক্যাুলারিজম।

সেন্সরবোর্ড এমন সব নাটক ও চলচিত্র অনুমোদন দিতে শুরু করে যা যুব সমাজের নৈতিক অবক্ষয়ের কারণ হয়ে দাড়ায়। সু-কৌশলে তারা তৎকালীন নারী সমাজের পর্দাপ্রথা উঠিয়ে দেয়। অতীতে ইহুদীদের বিরুদ্ধে বিতর্কের জন্ম দিয়েছে এমন প্রতিটি বই তারা লাইব্রেরী থেকে সরিয়ে ফেলতে শুরু করে। পত্রিকা প্রতিষ্ঠানগুলোকেও বাধ্য করে যেন তাদের বিরুদ্ধে আর কোন নেতিবাচক সংবাদ প্রকাশ না করে। মানুষের মনে অদৃশ্য ভয় ঢুকিয়ে দিতে তারা জন্ম দেয় অসংখ্য উদ্ভট মতবাদ। যেমনঃ “আ্যান্টি সেমিনিজম”।

W. Cleon Skousen (সাবেক এফ.বি.আই কর্মকর্তা) ১৯৫৮ সালে The naked communist নামে একটি বই প্রকাশ করেন। সে বইয়ে তিনি উল্লেখ করেন- ‘কোন সমাজ ব্যাবস্থায় পরিবর্তন আনতে চাইলে,সেখানকার অন্তত একটি প্রজন্ম কে টার্গেট করতে হবে। এ জন্য প্রয়োজন ২০-২৫ বছরের একটি পরিকল্পনা।’ ইহুদীবাদী সংগঠন Anti Defamation League ঠিক এ কাজটিই করে সমাজ ব্যাবস্থায় পরিবর্তন আনার চেষ্টা চালিয়েছিলো।

রিদুয়ান ছিদ্দিকী

শিক্ষার্থী,শাহচান্দ আউলিয়া কামিল (স্নাতকোত্তর) মাদরাসা

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো ...

লিখুন এখানে

© All rights reserved © 2014 -22 Ctgcampus.com

Powered By Cynor Technology